বউ-শ্বাশুড়ি


চক্ষু শীতলকারি ছেলের বউ এবং অন্তর ঠান্ডা করা শাশুড়ি মা পাওয়া সৌভাগ্যের বিষয়!

বিয়ে করে কারো ছেলে বউ হওয়ার পর, কূটনী বউয়ের মনে হতে থাকে, এই ছেলেটির টাকার মালিক শুধু এখন আমি। ছেলেটি এখন আর তার পরিবারের জন্য মা বোনদের জন্য কোন খরচ করতে পারবে না। এর প্রাপ্য হকদার শুধুমাত্র আমি এবং আমি।

আর দজ্জাল শাশুড়ির মনে হতে থাকে, সারা জীবন কষ্ট করলাম আমি, ছেলের বউ কেন এত সুখ করবে??!! ছেলেটা এখন আর আমাকে ভালবাসে না, বউকে ভালোবাসে, বজ্জাত ছেমরি তাবিজ করছে!! ছেলে এখন সংসারে খরচ করার আগে চিন্তা করে, বিয়ের আগে করত না। বিয়ে না করানো উচিত ছিল!! (হিংসুটে অন্তরে এটা প্রবেশ করে না ছেলেটার খরচ বেড়েছে আয় বাড়েনি। একই রকম আয়ে তাকে তার বউ, মা, বাপ সবার খরচ টানতে হবে)।

অথচ এই দুজন মানুষ (শ্বাশুড়ি, ছেলের বউ) যদি একটু সমঝোতা করে বুঝে শুনে চলার চেষ্টা করত, তবে সংসার গুলো খুব শান্তির জায়গা হতো।

আমার ব্যক্তিগত অবজারভেশন হলো,এই জায়গায় ছেলেটার দায়িত্ব সবচেয়ে বেশি। মা এবং বউ কেউ কারো প্রতিপক্ষ না। সে যদি দুজনের সাথে ব্যালেন্স করে চলতে পারে এবং একজনের জন্য আরেকজনকে ছোট না করে তবে মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করা যায়।

তবে মায়ের পায়ের নিচে জান্নাত, এটার উপরে ভিত্তি করে মায়ের অন্যায়, অত্যাচার, জুলুম নির্যাতন সহ্য করে বউ এবং সন্তানের হক নষ্ট করার মধ্যেও কোন কল্যাণ নেই। একজন ব্যক্তিত্ববান পুরুষ মাত্রই এটা বুঝতে পারার কথা।